আবহাওয়া বিশ্বঘড়ি মুদ্রাবাজার বাংলা দেখা না গেলে                    
শিরোনাম :
শেখ হাসিনার অধীনেই আগামী বছর ডিসেম্বরের শেষ সপ্তাহে জাতীয় নির্বাচন!      হবিগঞ্জ ২ আসনে ধানের শীষের প্রার্থী আহমদ আলী মুকিব      অছাত্র ও চিহ্নিত শিবির কর্মীকে ছাত্রলীগের সভাপতি করার প্রতিবাদে ১১ ছাত্রলীগ নেতার পদত্যাগ       রাখাইনের জঙ্গলে লুকিয়ে থাকা রোহিঙ্গারা পানি আর ঘাস খেয়ে বেঁচে আছে: রয়টার্স      উখিয়া ও টেকনাফে সুপারি বাম্পার ফলনে চাষিদের মুখে হাসি      দিনাজপুর-৪ (চিরিরবন্দর-খানসামা) মাঠ গরমে ব্যস্ত নতুনরা      কুমিল্লায় মুক্তিযোদ্ধার বিরুদ্ধে ৫ পরিবারকে মামলা দিয়ে হয়রানির অভিযোগ      
যক্ষ্মা নিরাময়ে এগিয়ে বাংলাদেশ
Published : Saturday, 18 June, 2016 at 1:38 AM, Count : 187
যক্ষ্মা নিরাময়ে এগিয়ে বাংলাদেশডেস্ক রিপোর্ট: দক্ষিণ এশিয়ায় বাংলাদেশ জনবহুল হওয়ার পরও কেন যক্ষা রোগ নিরাময়ে বেশ এগিয়ে গেছে, তার কারণ নির্ণয় নিয়ে সম্প্রতি ডেনমার্কের একটি আন্তর্জাতিক স্বাস্থ্য কনফারেন্সে ব্যাপক আলোচনা হয়। এতে গবেষকরা জানান, ক্যান্সারের চেয়ে যক্ষ্মার চিকিৎসায় ব্যয় তুলনামূলক অনেক কম। স্বল্পোন্নত দেশগুলো স্বাভাবিক নিয়মে ওই সব প্রকল্পে মনোযোগ দেয়, যে সব প্রকল্পে খরচ কম হয়। গবেষকরা মনে করেন, বাংলাদেশকে ক্যান্সার নিরাময়ের চেয়ে যক্ষ্মা নিরাময়ে বেশি মনোযোগ দেয়া উচিত। বিশেষত দেশটি এই খাতে বেশ সাফল্য দেখাতে পেরেছে। 
কনফারেন্সে বাংলাদেশে যক্ষ্মা নিরাময় প্রসঙ্গ মূল গবেষণা উপস্থাপন করেন কোপেনহেগেন কনসেনসাস সেন্টারের পরিচালক ও কোপেনহেগেন বিজনেস স্কুলের ভিজিটিং অধ্যাপক বিয়র্ন লুমবার্গ।  
কনফারেন্সে ডেনমার্কের কোপেনহেগেন কনসেনসাস সেন্টার ও বাংলাদেশের এনজিও ব্রাক যৌথভাবে কাজ করে এবং কোন খাতে সম্পদ ব্যয়ে সবচেয়ে বেশি ফলাফল পাওয়া যাবে তা নির্ধারণে বাংলাদেশ সরকার ও দাতাদেরকে একটি গঠনমূলক নির্দেশনা দেয়। 
অধ্যাপক বিয়র্ন লুমবার্গ তার গবেষণাপত্রের ভূমিকায় লিখেন, প্রতিদিন বিশ্বের নীতিনির্ধারকরা সামাজিক সমস্যা সমাধানের ক্ষেত্রে দ্বিধাদ্বন্দ্বে ভোগেন। অনেকে চিকিৎসাসেবা, দূষণরোধ কিংবা কৃষি উৎপাদনশীলতার চেয়ে শিক্ষাকেই বেশি গুরুত্ব দেন। 
তার মতে, আন্তর্জাতিক লবিয়িং গ্রুপ, মানবাধিকার কর্মী এবং গণমাধ্যম সবসময়েই নির্দিষ্ট কিছু সমস্যার সমাধানে দেশের নীতি নির্ধারকদের ওপর চাপ সৃষ্টি করে। যার মধ্যে রয়েছে, সৌরপ্যানেল নির্মাণ, জিকা ভাইরাস নির্মূলকরণ, অবিলম্বে ট্যাক্স ফাঁকি বন্ধ ইত্যাদি। এসব ঢামাঢোলে পুষ্টি বা সংক্রামক রোগ দমনে প্রয়োজনীয় পদক্ষেপ গ্রহণের বিষয়টি চাপা পড়ে যায়। 
তিনি বলেন, অধিকাংশ দেশের রাজনীতিতেও আছে অনেক সমস্যা। এসব দেশ সমস্যার সমাধানে কার‌্যকর পদক্ষেপের চেয়ে নীতি প্রণয়ন ও নানা ধরনের বাগাড়ম্বর কর্মসূচির ওপরেই বেশি জোরারোপ করে। যেকোনো সামাজিক সমস্যার সমাধানে সবচেয়ে বড় বাধা হলো বিশ্বের অধিকাংশ দেশ সবসময়েই একটি বিষয়ের উপরে জোর দেয়। তা হলো কোনো সমস্যার সমাধানে যদি অর্থ কম লাগে, তাহলে তারা শুধু সেটা করতেই আগ্রহ দেখায়। 
অধ্যাপক লুমবার্গ মনে করেন, ‘এটা ভালো হতো যদি নীতিনির্ধারকরা সমস্যার সার্বিক তীব্রতার ওপর নজর রাখতেন। যেখানে টাকা কম লাগবে, শুধু সে সমস্যাই নয়, তাদের খেয়াল রাখতে হবে, কোন সমস্যা সবার আগে সমাধান প্রয়োজন। প্রথমবারের মতো এমন পদ্ধতিই অবলম্বন করার ক্ষেত্রে এগোচ্ছে বাংলাদেশ।’  
তিনি লিখেছেন, অনেক অনেক ক্ষেত্রেই বাংলাদেশের অসাধারণ অগ্রগতি হয়েছে। অর্থনৈতিক প্রবৃদ্ধি গত এক দশক ধরে গড়ে ছয় শতাংশ ধরে রাখতে সক্ষম হয়েছে। ১৯৯০ সাল থেকে দারিদ্র্যের হার দ্রুত হ্রাস পেয়েছে। ধারাবাহিকভাবে গড় আয়ুও বেড়েছে। ২০১৪ সালে বাংলাদেশের মানুষের গড় আয়ু ছিল ৭০, যা  ১৯৮০ সালে ছিল মাত্র ৪৮ বছর। 
তার মতে, ভবিষ্যতে বাংলাদেশকে উন্নতি করতে অনেক ক্ষেত্রে পদক্ষেপ নিতে হবে। তিনি এতে উল্লেখ করেন, গত বছরের শেষের দিকে গঠিত বিশ্বের সেরা অর্থনীতিবিদদের সমন্বয়ে তৈরি একটি কমিশন এমন ৭৬টি সুপারিশ করে বাংলাদেশের জন্য। তার মধ্যে রয়েছে যক্ষ্মা নির্মূলের বিষয়টিও। বেশ সময় নিয়ে যাছাই বাছাইয়ের পর বাংলাদেশের শীর্ষ অর্থনীতিবিদদের সমন্বয়ে গঠিত একটি প্যানেলও একমত হয়েছে যে, যক্ষ্মা নির্মূলেই বাংলাদেশেই বেশি মনোযোগী হওয়া উচিত। এমনকি সার্ভিক্যাল ক্যান্সারের চেয়েও যক্ষ্মা নিরাময়েও বাংলাদেশকে বেশি গুরুত্ব দেয়া উচিত। 
প্রতি বছর সার্ভিক্যাল ক্যান্সারে ১০ হাজার নারীর মৃত্যু হয়। কিন্তু এ রোগের সমাধান বেশ ব্যয়বহুল। সার্ভিক্যাল ক্যান্সারের চেয়ে দ্বিগুণ নারী মারা যায় যক্ষ্মায়। তাই অর্থনীতিবিদরা মতামত দেন, যক্ষ্মার নিরাময়েই বাংলাদেশকে বেশি মনোনিবেশ করা উচিত। 
অর্থনীতিবিদরা মত দেন, সার্ভিক্যাল ক্যান্সার ও যক্ষ্মা, উভয় সমস্যা সমাধানেই বাংলাদেশকে তার লক্ষ্য নির্ধারণ করতে হবে। কিন্তু শুরুটা করা উচিত এমন কিছু দিয়ে যাতে তুলনামূলকভাবে যাতে বেশি মানুষই লাভবান হয়। একজন সার্ভিক্যাল ক্যান্সার রোগীর চিকিৎসায় যে অর্থ ব্যয় হয় তা দিয়ে ৫০ জন যক্ষ্মার রোগীর নিরাময় সম্ভব। 







স্বাস্থ্য পাতার আরও খবর
আজকের রাশিচক্র
সম্পাদক : ইউসুফ আহমেদ (তুহিন)

৭৯/বি, এভিনিউ-১, ব্লক-বি, মিরপুর-১২, ঢাকা-১২২৬, বাংলাদেশ।
ফোন : +৮৮-০২-৯০১৫৫৬৬, মোবাইল : ০১৯১৫-৭৮৪২৬৪, ই-মেইল : editor@natun-barta.com